সিলেট হঠাৎ বেড়েছে ডাকাতি, আতঙ্কে নাগরিকরা।

সিলেট

চলতি বছরের শুরুর দিকের তুলনায় সম্প্রতি সিলেট অঞ্চলে বেড়েছে ডাকাতির ঘটনা। রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) পুলিশ সদর দপ্তরে অপরাধবিষয়ক এক সভায় এ তথ্য উপস্থাপন করা হয়।

এছাড়া একই রাতে (রবিবার) সিলেটের ওসমানীনগর ও গোলাপগঞ্জ উপজেলায় ঘটেছে ডাকাতির ঘটনা। এতে সিলেটের মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

তবে পুলিশ বলছে- সিলেট রেঞ্জে ডাকাতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানা গেছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের নিয়ে পুলিশ সদর দপ্তরে দুই দিনব্যাপী (রবি ও সোমবার) অপরাধবিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সিলেটসহ সারা দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও অপরাধ নিয়ে সভায় আলোচনা হয়েছে।

রবিবারের সভায় উপস্থিত ছিলেন সিলেটসহ ৬৪ জেলার পুলিশ সুপাররা। এ ছাড়া অংশ নেন পুলিশের নয়টি রেঞ্জের (হাইওয়ে রেঞ্জসহ) উপমহাপরিদর্শক, আট মহানগরের আটজন পুলিশ কমিশনার, র‍্যাবের সব ব্যাটালিয়ন প্রধান, র‌্যাবের মহাপরিচালক, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) প্রধান, পুলিশের বিশেষ শাখার প্রধান এবং পুলিশ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সভায় সভাপতিত্ব করেন আইজিপি বেনজীর আহমেদ।

রবিবার সভায় পুলিশ সদর দপ্তরের উপমহাপরিদর্শক (অপরাধ) ওয়াই এম বেলালুর রহমান সারা দেশে ডাকাতি, দস্যুতা, খুন, দ্রুত বিচার, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা, অপহরণ, চুরি, কিশোর অপরাধ, মাদক ও অস্ত্র উদ্ধারসংক্রান্ত তথ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, অপরাধের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়- চলতি বছরের প্রথম তিন মাসের তুলনায় পরের তিন মাসে সিলেট, ঢাকা ও চট্টগ্রাম রেঞ্জের কিছু জেলায় ডাকাতি বেড়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক খুরশীদ হোসেন বলেন, এসব অঞ্চলে ডাকাতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

উল্লেখ্য, রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ভোররাতে সিলেটের গোলাপগঞ্জ ও ওসমানীনগর উপজেলায় একসঙ্গে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণের দত্তরাইল মিশ্রপাড়া গ্রামের জ্ঞান সেনের বাড়িতে একদল ডাকাত হানা দেয়। ডাকাতরা জ্ঞান সেন ও তার স্ত্রী শক্তি রাণী সেনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বেঁধে ফেলে এবং জ্ঞান সেনের ছেলে দুলাল সেনকে মারধর করে।

ডাকাতরা জ্ঞান সেনের বাড়ি থেকে ১ হাজার ডলার, নগদ দুই লক্ষ টাকা, ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও মূল্যবান জিনিসপত্রসহ কয়েক লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় বাড়ির সিসি ক্যামেরাও নিয়ে যায় ডাকাতরা।

পালানোর সময় পশ্চিম দত্তরাইল জামে মসজিদের ইমাম বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয় লোকজনকে অবগত করেন। এসময় গ্রামের লোকজন ডাকাতদের ধাওয়া করলে তারা এলোপাতাড়ি গুলি ছুঁড়লে পাঁচজন আহত হন। বাকি ডাকাতরা পালিয়ে গেলেও লোকজন ডাকাত আরিফ আহমদকে ধরে গণধোলাই দিলে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। তার কাছ থেকে ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত অস্ত্র ও লুন্ঠিত কিছু মালামাল উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় জড়িত সুহেল আহমদ (২২) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে গোয়াইনঘাট থানাপুলিশ। সুহেল গোয়াইনঘাট উপজেলার ডৌবাড়ী ইউনিয়নের নগর ডেংরী গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে।

অপরদিকে, রোববার ভোররাতে শেরপুর পশ্চিম বাজারের ইউনুছ ম্যানশনের নিচ তলায় অবস্থিত ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের (ইউসিবিএল) এটিএম বুথে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। বুথ থেকে ২৪ লাখ ২৫ হাজার ৫ শ’ টাকা লুট করে পালিয়ে যায় ডাকাতরা। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হলেও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। টাকাও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

জানা যায়, রোববার ভোররাতে একই রঙের মুখোশ পরা ৪জনের ডাকাতদল ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকে ফার্স্ট ট্র্যাক বুথে হানা দেয়। এ সময় ডাকাতরা বুথের নিরাপত্তাকর্মীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত মুখ বেঁধে ফেলে মারধর করে। পরে বুথের লকার ভেঙে ২৪ লাখ ২৫ হাজার ৫শ’ টাকা লুট করে পালিয়ে যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *