বয়সে বড় নারীকে বিয়ে

বিনোদন

বিয়ের ক্ষেত্রে পুরুষের চেয়ে নারীর বয়স কম হবে, আমরা সাধারণত এমনটাই দেখে অভ্যস্ত। তবে তারকাদের মধ্যে কাউকে কাউকে নিজের থেকে বেশি বয়সী নারীকে বিয়ে করার ঘটনা আমরা দেখতে পেয়েছি। সদ্য বিবাহিত বলিউড তারকা ভিকি কৌশলের থেকে তার স্ত্রী ক্যাটরিনা কাইফ পাঁচ বছরের বড়। এদিকে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন তার স্বামী অভিষেক বচ্চনের থেকে তিন বছরের বড়। বিশ্বখ্যাত তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া তার স্বামী নিক জোনাসের থেকে বড় দশ বছরের।

শুধু তারকাদের ক্ষেত্রেই যে বয়সে বড় নারীকে বিয়ে করার ঘটনা ঘটে, তা কিন্তু নয়। সাধারণের মধ্যেও এটি ঘটে থাকে। তবে সেটি খুব কম সংখ্যক ক্ষেত্রে ঘটে বলে বেশিরভাগ সময় আমাদের জানাশোনার বাইরে থেকে যায়। আবার প্রচলিত ধারার সঙ্গে এটি যায় না বলেই অনেকে গোপন রাখেন। স্ত্রী তার স্বামীর চেয়ে বয়সে বড় হবে, এটি মেনে নেওয়ার মতো মানসিক সামর্থ্য আমাদের সমাজে এখনও খুব বেশি মানুষের হয়নি।

আপনি যদি আপনার থেকে বয়সে বড় কোনো নারীকে বিয়ে করেন, তবে সম্পর্কটি সত্যিই একটি সমৃদ্ধ অভিজ্ঞতা হতে পারে। বয়সে বড় নারীকে বিয়ে না করার পেছনে অসংখ্য যুক্তি দেখানো সম্ভব। তাই বলে কিন্তু এর সুবিধাগুলো অস্বীকার করার সুযোগ নেই। জেনে নিন আপনার থেকে বয়সে বড় নারীকে বিয়ে করলে কোন সুবিধাগুলো পেতে পারেন-

অভিজ্ঞতাই বয়সে বড় নারীকে আকর্ষণীয় করে তোলে

আপনার থেকে বয়সে বড় নারীর অভিজ্ঞতা বেশি হবে, এটাই স্বাভাবিক। তিনি সহজেই আপনার হৃদয়ের ভাষা পড়তে পারবেন। তিনি হয়তো পর্যাপ্ত রোমান্টিক সম্পর্ক দেখেছেন এবং হৃদয়ভাঙার বেদনাও বুঝতে শিখেছেন। তুচ্ছ বিষয়গুলোতে সময় এবং শক্তি ব্যয় করতে না চাইলে এমন নারীকেই বিয়ে করুন। কারণ কম বয়সী নারী বেশি আবেগপ্রবণ হয়ে থাকে। আপনার থেকে বয়সে বড় নারীকে তার অভিজ্ঞতাই আকর্ষণীয় করে তোলে। তিনি নিজেকে ভালোভাবে জানেন এবং দাম্পত্য সম্পর্কের গতিশীলতা আরও ভালোভাবে বোঝেন।

 

ভাবছেন কেন বয়সে বড় নারীকে বিয়ে করা ভালো? ভেবে দেখুন, যখন আপনি তার থেকেও তরুণ, তখন আপনার সঙ্গী আপনার সব বিষয়েই প্রশংসা করবেন। আপনি তার কাছে আন্তরিক স্নেহ এবং ভালোবাসা পাবেন, কারণ তিনি তরুণীদের মতো বিভ্রান্ত হবেন না। তিনি জানেন যে তিনি কী চান। কী গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝার জন্য তার যথেষ্ট অভিজ্ঞতা রয়েছে। একটি সম্পর্কের ক্ষেত্রে ছোট ছোট বিষয়গুলোর প্রশংসা করার গুরুত্ব তিনি জানেন। এই উপলব্ধি সবকিছুতে ছড়িয়ে পড়ে এবং সম্পর্কে আলাদা মাত্রা যোগ করে। এটি বয়সে বড় নারীকে বিয়ে করার সবচেয়ে বড় সুবিধা।

স্বাধীনতা

আপনার থেকে বয়সে বড় নারী নিশ্চয়ই তার কাজে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন এবং আর্থিকভাবে স্বাধীন, যা তাকে মানসিকভাবেও স্বাধীন করে তোলে। তিনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারেন এবং তার পুরুষকে আঁকড়ে ধরার বা তার দিকে তাকানোর দরকার নেই, যা একজন অল্প বয়স্ক নারীর ক্ষেত্রে হতে পারে। বয়সে বড় নারীকে বিয়ে করার সবচেয়ে বড় সুবিধাগুলোর মধ্যে একটি হলো যে তিনি কখনোই আপনার ওপর সম্পূর্ণ নির্ভরশীল হবেন না। কারণ তিনি ইতিমধ্যে নিজের ওপর নির্ভরশীল থাকতে শিখে গেছেন। তাই আপনি যদি আপনার বয়সে বড় কোনো নারীর সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে জড়াতে চান তবে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করুন। অন্যদের তুলনায় অনেক বেশি পরিপক্ক হওয়ার কারণে, আপনাকে সর্বদা তার ভবিষ্যত সুরক্ষিত করার বিষয়ে চিন্তা করতে হবে না। কারণ তিনি ইতিমধ্যেই এটি নিশ্চিত করেছেন। এটি একজন যুবকের মন থেকে অনেক চাপ কমিয়ে দেয়- আর্থিক এবং মানসিক উভয় দিক থেকেই।

পরিণত

আপনি যদি বয়সে বড় নারীকে বিয়ে করার সুবিধা এবং অসুবিধাগুলো বিবেচনা করেন, অনেকগুলো সুবিধাই চোখে পড়বে। যেমন তার অনেক বেশি পরিণত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। তিনি তার নিরাপত্তাহীনতা এবং ভয় মোকাবেলা করার জন্য যথেষ্ট শক্তিশালী এবং বাস্তবতা থেকে পালানোর জন্য সেগুলো আপনার ওপর চাপিয়ে দেবেন না। যদি এমন কোনো নারীকে ভালোলেগে যায়, যিনি বয়সে বড় বলে বিয়ের কথা ভাবতে পারছেন না, তবে এভাবে ভেবে দেখতে পারেন। আপনাদের মধ্যে সম্পর্কের সুন্দর বোঝাপড়া থাকলে দাম্পত্য জীবন সুন্দর করা খুব একটা কঠিন হবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *