বিপদে পড়ে মানুষ চিনেছি: পরীমনি

বিনোদন

দুঃসহ ২৮টি দিন। বদলে দিয়েছে তার জীবনের বহু কিছু। বলছেন, মানুষ চিনতে পেরেছেন তিনি। আসলে কতোটা! সমকালীন ঢাকাই সিনেমার সবচেয়ে আলোচিত-সমালোচিত নায়িকা পরীমনি।

বলেন, কারাগারের দিনগুলো দুঃস্বপ্নের মতো ছিল। স্বাভাবিক না। সবমিলিয়ে একটা ট্রমার মধ্যে আছি।

যা হলো তারপর অনুভূতি হারিয়ে ফেলেছি। তাই এই মুহূর্তে রিমান্ড, কারাগার কেমন কেটেছে সেটা বিস্তারিতভাবে বলা সম্ভব না। মানসিকভাবে একটু ঠিক হয়ে নেই। অবশ্যই বিস্তারিত বলবো। কেন বলবো না। সবকিছু বলার জন্য ছটফট করছে মন। বললেই তো শান্তি পাবো।

পরীমনি বলেন, এসবের জন্য আমি কখনই প্রস্তুত ছিলাম না। ভাবিনি এমন বিপদ আসবে। কী থেকে কি হয়ে গেল এখনও বুঝে উঠতে পারছি না!

অভিনয়ে ফেরা প্রসঙ্গে বলেন, আমি আর্টিস্ট। অভিনয়টাই পেশা। ফেরার কিছু নেই। দ্রুতই কাজ শুরু করবো। তার মুক্তির পর বাসা ছাড়ার নোটিশ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে অনেক। এ প্রসঙ্গে পরীমনি বলেন, আসলে বাসায় এলেই নানা বললো, বাড়ির দায়িত্বে যিনি রয়েছেন তিনি বলেছেন বাসা নাকি ছেড়ে দিতে হবে। তবে লিখিত কোনো নোটিশ দেয়া হয়নি। আন্টি আমাকে খুবই আদর করেন। তিনি বলেছেন, এই বাসার অন্যান্য ফ্ল্যাটের মানুষেরা বিব্রত। মৌখিকভাবে অসুবিধাগুলো বুঝিয়ে বলেছেন। গত এক মাস যেভাবে মানুষজন এসেছে। র‌্যাব, পুলিশ, গণমাধ্যমকর্মী কেউই তো বাদ যায়নি। আর আমার বাসার ঠিকানা বাংলাদেশের এমন কেউ নেই যে, জানে না! আমার বাড়ি হলেও এটা মেনে নিতাম না। তাই নিজের কাছেই মনে হচ্ছে নিরাপদ নয় এই বাসা। নিরাপত্তাসহ তাদের ভালোর জন্য বাসাটা অবশ্যই পরিবর্তন করতে হবে। এছাড়া উপায় নেই।

পরীমনিকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া রীতিমতো বিভক্ত। কেউ তার পক্ষে, কেউ বিপক্ষে। কেউ জানাচ্ছেন ভালোবাসা, কেউবা নিন্দা। এ ব্যাপারে পরীমনির বক্তব্য কি? জবাবে নায়িকা বলেন, আমি তো কারাগারে ছিলাম। অনেক কিছুই দেখিনি বা শুনিনি। ভালোবাসা-নিন্দা সবকিছুই ইতিবাচকভাবে নিচ্ছি। তবে এই বিপদে পড়ার পর মানুষ চিনেছি। কারা আমাকে সত্যি ভালোবাসে আর কারা ভালোবাসার অভিনয় করে বুঝেছি। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রসঙ্গে পরীমনি বলেন, সব তো আপনারা জানেনই। দেখলেনই তো। আমাকে আসলে ফাঁসানো হয়েছে। সবাই বুঝে গেছে বিষয়টা ইতিমধ্যে।

২০১৫ সালে ঢাকাই সিনেমায় অভিষেক পরীমনির। ৩০টির মতো সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। সম্প্রতি ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার মামলা করে বিপুল আলোচনায় আসেন পরীমনি। তার বিরুদ্ধেও ওঠে নানা অভিযোগ। গত ৪ঠা আগস্ট তার বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। মাদক আইনে মামলা হয় তার বিরুদ্ধে। ২৭ দিন কারাভোগের পর মুক্তি পান পরীমনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *