নজরুল চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীর অভিযোগ প্রমাণিত, ভবনের অনুমোদন বাতিল?

সিলেট

সিলেট নগরের শিবগঞ্জ সোনাপাড়া নবারুন এলাকায় বিধিবহির্ভুত ভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ করায় এর অনুমোদন বাতিল করেছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। গত ২০ সেপ্টেম্বর এ নিয়ে সৈয়দ এ কে এম নজরুল ইসলামের কাছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন এর পক্ষ থেকে নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, ২১নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত সোনাপাড়া এলাকায় তিনি পূর্বে ভুল তথ্য দেখিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণের অনুমোদন নিয়েছিলেন। বহুতল ভবনের চারপাশের কিছু কিছু অংশ অন্যের মালিকানাধীন জায়গা জোরপূর্বক দখল করে তিনি তাঁর ভবন নির্মাণ করেছেন। এছাড়াও তাঁর ভবনের সম্মূখের রাস্তার চওড়া ৪.৫৮ মি. দেখানো হলেও বাস্তবে তা ৩.২০ মি. দেখিয়েছেন সৈয়দ এ কে এম নজরুল ইসলাম।

ভবন নির্মাণে সঠিক তথ্য না দেওয়ায় অনুমোদন কেন বাতিল হবে না জানতে চেয়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশন এর পক্ষ থেকে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরা ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম সৈয়দ নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ভবন নির্মাণে সন্ত্রাসী ব্যবহার, হামলা ও ড্রেনের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগও উঠেছিলো বেশকিছু দিন আগে।

এসব অভিযোগ তুলে ধরে ভুক্তভোগী সোনারপাড়া নবারুন ২ নম্বর বাসার মালিক সাজ্জাদুর রহমান মুন্না গত ৮ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে মুন্না জানান, তিনি ২০১৭ সালে সোনারপাড়া নবারুন ২ নম্বার বাসাটি ক্রয় করে বসবাস করছেন। পাশে জায়গা ক্রয় করে ৬ তলা ভবন নির্মাণ করছেন ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল। তিনি অধিকাংশ সময় প্রবাসে থাকার সুযোগে ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল তার মালিকানা রাস্তা ব্যবহার করে ভবন নির্মাণ শুরু করেন। ইউপি চেয়ারম্যান ভবনের কাজ শুরুর পরে কৌশলে সিটি কর্পোরেশন থেকে ভবনের অনুমতি নিয়েছেন। বার বার নিষেধ করার পরও চেয়ারম্যান ও তার লোকজন তা উপেক্ষা করে ভবন নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছেন।

ভুক্তভোগী মুন্না ভবন নির্মাণের কাজে বাঁধা দিলে গত ২১ আগস্ট চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের লোকেরা তার উপর হামলা চালায়।

সিলেট সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক উক্ত বহুতল ভবন নিমাণের অনুমোদন বাতিল করায় অনেকটা স্বস্তি পেয়েছেন সাজ্জাদুর রহমান মুন্না। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে এমন অনৈতিক কাজ করা এমন আরো নেতাদের দমিয়ে রাখতে প্রশাসনের প্রতি সুদৃষ্টি কামনা করছেন মুন্না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *