ট্রলের শিকার হয়ে সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের দ্বারস্থ মডেল বারিশ হক

বিনোদন

র‍্যাম্প মডেল হিসেবে শোবিজে বেশ পরিচিত মুখ বারিশ হক। একাধারে উপস্থাপিকা, নৃত্যশিল্পী এবং ব্র্যান্ড প্রমোটার তিনি। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ কিছু নোংরা এবং কুরুচিপূর্ণ ট্রলের শিকার হয়েছেন বারিশ। যেটিকে সাইবার অপরাধের পর্যায়ে পড়ে বলে বলছেন তিনি।

 

এ ব্যাপারে বারিশ হক  জানালেন, মূলত ফেসবুক কেন্দ্রিক নানা ব্র‍্যান্ডের প্রচারণাকে কেন্দ্র করে কিছু স্বার্থান্বেষী মহল তার, তার পরিবার এবং তার অনাগত সন্তানকে নিয়ে অত্যন্ত বাজে ভিডিও এবং স্ট্যাটাস আপলোড করছে। কিছু ব্যবসায়ীক পেজের কথামতো কাজ না করায় তা থেকেই এই দ্বন্দ্বের উৎপত্তি বলে তিনি জানান। এরই ফলশ্রুতিতে বেশ কিছু পেজ, ব্যক্তি তাকে নিয়ে নোংরা এই কাজ শুরু করেছে এবং এক পর্যায়ে কিছু ট্রল পেজকে দিয়েও ওরা অত্যন্ত আপত্তিকর ভিডিও আপলোড করছে যা তার জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বারিশ হকের স্বামী সীমান্ত জানান, তারা সোমবার (৯ মে) সাইবার সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনে অভিযোগ করেছেন এবং যথাযথ আইনি প্রক্রিয়াতে এগুচ্ছেন।

বিষয়টি নিয়ে সহকারী পুলিশ কমিশনার,সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন (ডিএমপি) ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তারা একটি অভিযোগ পেয়েছেন বারিশ হকের কাছ থেকে, এ ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেছেন।

তার মতে, মূলত ফেসবুকে বিভিন্ন ব্র‍্যান্ডের প্রচারণাকে ঘিরে একটা দ্বন্দ্ব থেকে এই ঘটনার উৎপত্তি।  যে কেউ চাইলে তার ব্র‍্যান্ডের প্রচারণার জন্য ব্র্যান্ড প্রমোটারের সহায়তা নিতে পারেন, আবার পছন্দ না হলে নাও নিতে পারেন।  তবে তাই বলে এটাকে কেন্দ্র করে এমন কোনো কাজ করা যাবে না যা একজন মানুষের সামাজিক অবস্থানকে হেয় করে, কারও ব্যক্তিগত জীবনকে ঝুঁকির মুখে ফেলে দেয়। তাই এ ব্যাপারে আইন তার নিজস্ব গতিতেই চলবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.