টেলরের ১৫ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারের শেষটা হলো রূপকথার মতো

খেলাধুলা

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি টেস্ট, একদিনের আন্তর্জাতিক ও টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিনিধিত্ব করছেন।

আগের খেলায় জেতার কারণে এই খেলা ড্র করলেও লিগ জিততে পারত বাংলাদেশ। কিন্তু ৩ দিন খেলতে পারেনি টাইগাররা। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ, হেরে যায় ১১৬ রানে।

ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে টাইগারদের প্রথম ব্যাটিং ম্যাচের ফলাফল নিশ্চিত করেছে। প্রথম ইনিংসে ১২৮ রান করার পর জয় এড়াতে বাংলাদেশের প্রয়োজন আরও ৩৯৫ রান। কিন্তু লিটন দাস ছাড়া তাদের কেউই বড় ইনিংস খেলতে পারেনি, তাই কব্জায় হেরে নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর শেষ হয়ে যায়।

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে ইতিহাসগড়া ম্যাচে জয়ের জন্য পঞ্চম দিনের প্রথম সেশন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছিল বাংলাদেশক। তবে এ ম্যাচ তিন দিনের মধ্যেই বাংলাদেশকে হারিয়ে দিয়েছে কিউইরা।

দিনের আলো কমে আসছে। দ্বিতীয় নতুন বলের তখন বাকি ১ ওভার। অধিনায়ক টম ল্যাথাম বল তুলে দিলেন ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট খেলতে নামা তারকা খেলোয়াড় রস টেলরের হাতে।

ক্রাইস্টচার্চে হ্যাগলি ওভালের তার হাতেই বাজল বাংলাদেশের বিদায়ের ঘণ্টা। টেলরের ১৫ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারের শেষটা হলো রূপকথার মতো।তৃতীয় বলে ইবাদত হোসেন তুলে মারতে গেলেন তাকে, উঠল ক্যাচ। ক্যাচ নিলেন ল্যাথাম, টেলর পেলেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় উইকেট। এর মাধ্যমেই অলআউট হলো মুমিনুল হকরা। এ ম্যাচে রস টেলর মাত্র ৩ বল করেই এক উইকেট শিকার করেছেন।

১১২ টেস্টের ক্যারিয়ারে মাত্র অষ্টম ইনিংসে বোলিং করেছেন টেলর। ২০১৩ সালে সর্বশেষ বোলিং করেছিলেন বাংলাদেশের বিপক্ষেই।

১০২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ১৯০৯ রান রয়েছে তার দখলে। অপরদিকে, ওয়ানডেতে ২৩৩টি ম্যাচ খেলে ৮৫৮১ রান এবং ১১০টি টেস্ট খেলে ৭৫৮৪ রান করেছেন টেলর (বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামার আগ পর্যন্ত) , যা দুই ফরম্যাটেই নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটার হিসেবে সর্বাধিক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *